• +8801711963393

ডিজিটাল উদ্ভাবনী মেলা

কৃষি সহায়তা

অনলাইনে ক্রয়-বিক্রয়

কম্পিউটার প্রশিক্ষণ

ডিজিটাল উদ্ভাবনী মেলা ২০১৭

ডিজিটাল উদ্ভাবনী মেলা ২০১৭ নিয়াজ মোহাম্মদ স্টেডিয়ামে ১৬ জানুয়ারী ২০১৭ থেকে ১৮ জানুয়ারী ২০১৭ পর্যন্ত তিনদিন অনুষ্ঠিত হচ্ছে। ব্যাপক উদ্দীপনায় জেলা প্রশাসণের সহায়তায় মেলায় সকল উপজেলা হতে উদ্ভাবনী প্রযুক্তি নিয়ে উপস্থিত হয়েছেন। তরুন উদ্ভাবক,ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর উপজেলা স্টল পরিচালিত হয় থানা নির্বাহী অফিসার জনাব জান্নাতুল নাঈমা এর তত্ত্বাবধানে। এই স্টলে ইউনিয়ন ভিত্তিক কৃষি সেবার মাধ্যমে কৃষকগণ কিভাবে নতুন নতুন জাতের ফসল তৈরির করার প্রয়াস এবং পোকার উপকারি ও অপকারিতা সম্পর্কে অবহিত করণ, দু:স্থ মহিলাদের স্বনির্ভর হওয়ার উদ্ভাবনী শক্তি বৃদ্ধি, কম্পিউটার ট্রেনিং সহ ফ্রিল্যান্সার তৈরির প্রযুক্তির সফল ব্যবহার সম্পর্কে দর্শনার্থীদের অবহিত করা হয়। মেলায় পরিদর্শনে আসেন ডিজিটাল উদ্ভাবনী মেলা ২০১৭ উদ্ভোধক ও প্রধান অতিথি জনাব কবির বিন আনোয়ার, মহাপরিচালক (প্রশাসন), গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার

কৃষকদের কৃষি বিষয়ে ভিডিও কনফারেন্সিং এর মাধ্যমে সেবা

ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর উপজেলা হতে ইউনিয়ন ডিজিটাল সেন্টার এর উদ্যোক্তাগণদের সহায়তায় ইউনিয়ন কৃষকদের কৃষি বিষয়ে ভিডিও কনফারেন্সিং এর মাধ্যমে নিয়মিত সেবা প্রদান করা হয়। এ ক্ষেত্রে তালশহর পূর্ব ইউনিয়ন, মাছিহাতা ইউনিয়ন এবং বাসুদেব ইউনিয়ন খুবই সক্রিয়। কৃষকদের বিশেষ করে প্রান্তিক কৃষকদের তাদের কৃষিতে পেস্টিসাইড কন্ট্রোল, কোন ধরনের পোকা উপকারী ও উপকারী, পাতার রং অনুযায়ী মিশ্র সারের প্রয়োগ সহ নানাবিধ বিষয়ে পরামর্শ ও সচেতন করে তোলা এবং অধিক ফসল ফলানোর জন্য ডিজিটাল সেন্টারগুলো মুখ্য ভূমিকা পালন করছে।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর উপজেলা নারী উন্নয়ন ফোরাম এর কার্যক্রম

ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর উপজেলা নারী উন্নয়ন ফোরাম এর কার্যক্রম এর অংশ হিসাবে অত্র উপজেলার ইউনিয়ন সমূহে সমাজে কম ভাগ্যবান, দু:স্থ ও অসহায় মহিলাদের তালিকা তৈরি করে তাদের হস্ত শিল্পসহ বিভিন্ন বিষয়ে ট্রেনিং প্রদান করা হয়। প্রশিক্ষণ সহায়তা করা হয় সদর উপজেলার সক্রিয় সহযোগিতায়। প্রশিক্ষণ শেষে বিভিন্ন পণ্য তৈরি ও বাজারজাত করা হয়। সম্প্রতি ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বাইরে ঢাকা সহ সারাদেশে প্রচুর চাহিদা সৃষ্টি হয়েছে। উপার্জিত আয় থেকে সকলেই স্বনির্ভর হয়ে উঠছেন। বর্তমানে দু:স্থ মহিলা কর্তৃক এরূপ ১১টি ইউনিয়নে মোট ১৩টি বিক্রয়কেন্দ্র চালু আছে। আরও কয়েকটি বিক্রয়কেন্দ্র চালু হওয়ার অপেক্ষায় আছে। ঢাকায় ২টি বিক্রয় কেন্দ্র আছে যেখানে এই হস্তশিল্প চাহিদা প্রচুর রয়েছে। সদর উপজেলা নারী উন্নয়ন এর এই কর্মসূচী ডিজিটাল বাংলাদেশ বির্নিমানে ফলপ্রসু ভুমিকা রাখছে এবং রাখবে।

ডিজিটাল সিগনেচার চালুকরণ

ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর উপজেলায় থানা নির্বাহী অফিস সমূহে ডিজিটাল সিগনেচার চালু করা হয়। বায়োমেট্রিক্স এই কার্ডের মাধ্যমে অফিস কর্মকর্তা, কর্মচারীদের অফিসে হাজির এবং প্রস্থানের রেকর্ড সংগ্রহ করা হয়। ই গভর্ন্যান্স চালুর একটি ধাপ এটি। গত ১১ জানুয়ারী ২০১৭ দীপক চক্রবর্তী অতিরিক্ত সচিব, গনপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর উপজেলায় থানা নির্বাহী অফিস এর ডিজিটাল সিগনেচার পদ্ধতিটি পরিদর্শন করেন। পাইলট প্রেগ্রাম হিসাবে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর উপজেলায় ৫টি বিদ্যালয়ে শিক্ষক-কর্মচারীদের মধ্যে চালু করা হয়। চিনাইর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব ডিগ্রি কলেজ এ সকল শিক্ষার্থীদের জন্য বায়োমেট্রিক্স পদ্ধতি চালু হওয়ার প্রস্তুতি সম্পন্ন। সেখানে শিক্ষার্থীরা প্রবেশ পথে তার সাথে থাকা আইডি কার্ড বায়োমেট্রিক্স ডিভাইসে প্রদর্শন সাপেক্ষ প্রবেশ করতে হবে, কেহ বিদ্যালয়ে অনুপস্থিত থাকলে নির্দিস্ট সময় শেষে অভিভাবকের মোবাইলে সতর্কীকরণ মেসেজ স্বয়ংক্রিয়ভাবে চলে যাবে।